খোকন

[বিধিসম্মত সতর্কীকরণঃ অশিষ্ট ভাষা ব্যবহৃত, ক্ষেত্রবিশেষে অপ্রাপ্তবয়স্কের অনুপযুক্ত।]         দেবু থেবড়ে বসেছিল ঘাসের উপরেই, খালের দিকে পিছন ফিরে। সামনে খবরের কাগজের উপর ছড়ানো চানাচুর-বাদাম, চারকোণে চারটে স্টোনচিপস দিয়ে চাপা দেওয়া। প্লাস্টিকের গ্লাসগুলো উড়ে যাবে বলে একটু একটু জল ঢেলে রাখছিল। রঞ্জন বসেছিল খালের দিকে মুখ করে, পা ছড়িয়ে; হাতে কয়েকটা হ্যান্ডবিল- জ্যোতিষার্ণব চক্রবর্তী, সোনার গয়নার মজুরিতে … Continue reading খোকন

Advertisements

কক্ষচ্যুত

ছোট্ট জানলাটা দিয়ে একটুকরো আকাশ কোনফাঁকে ঢুকে পড়েছে একচিলতে ঘরটায়, কেউ টের পায়নি; আপনিই কি পেয়েছিলেন কমরেড মনোতোষ? আপনি তো আপনার ক্ষীণ হয়ে আসা দৃষ্টির সর্বশক্তি প্রয়োগ করে তাকিয়ে ছিলেন ঘড়িটার দিকে; ক্লান্ত, বিষণ্ণ, যে ঘড়িটা প্রহর গুনছিল আপনার হয়ে। একদৃষ্টিতে আপনি চেয়ে দেখছিলেন কিভাবে সে একটু একটু করে আপনাকে এগিয়ে দিচ্ছে মৃত্যুর দিকে, তাই … Continue reading কক্ষচ্যুত

ছোট্ট একটা ‘মে দিবস’

একটা ছোট্ট ফ্ল্যাটবাড়ির ছোট্ট একটা দু-কামরার ফ্ল্যাটে থাকে আমাদের ছোট্ট বন্ধু টিনটিন, পাপা আর মার সঙ্গে। তার একটা বিশাল কাবার্ড আছে।তার মধ্যে আছে অনেকগুলো রঙিন ড্রেস, একটা ব্যাট, একটা ফুটবল আর অনেকগুলো বুক। টিনটিন এখন ক্লাস ফাইভ, কিন্তু ওর দশটা সাবজেক্ট, তার জন্য বারোটা বুক, যে সাবজেক্টটা সবচেয়ে বাজে, সেই অঙ্কের জন্য দুটো বুক। কিছু … Continue reading ছোট্ট একটা ‘মে দিবস’

জীবন, বাড়ি আছো ?

আট ফুট বাই আট ফুট ঘরের ছোট্ট জানালাটা, যেটা খুললেই দেড় ফুটের একটা তেকোনা আকাশ দেখা যেত একটা তার দিয়ে আড়াআড়ি দুভাগে ভাগ করা, ওটার সামনেই তেপায়া টুলটার উপর বসে, রেডিওটা গাইছিল, 'চাঁদ কেন আসে না আমার ঘরে'। তালে তালে হাওয়ায় দুলছিল উপরের দড়ি থেকে ঝোলা লুঙ্গি আর গামছা। বাথরুমের টিনের বালতিতে জল পড়ার শব্দে … Continue reading জীবন, বাড়ি আছো ?

নকশি ক‍্যাঁতার আগুন(সংকোলিতো)

শ্রী শ্রী শৃগালপোণ্ডিৎ পোকাশোকের কথা শ্রী শ্রী শৃগালপোণ্ডিতকে যারা চেনেন, তারা সকোলেই জানেন, তিনি কতো বড়ো লেকক এবং চিন্তাবিদ ছিলেন। য‍্যামোন ছিলো তাঁর বুদ্দি, ত‍্যামোন উচ্চবিচার। মানুষ পোতিভার কদোর জানে না, তাই তিনি ত্যামোন কোনো পুরোস্কার পান্নি, তাঁর অসামান্নো সিষ্টিগুলোর কোনো সংকলোনও হয়নি। তাঁর রচোনাগুলি অল্পো কিচু লোকের কাচেই পরিচিতো ছিলো। যোদিও সেই মহান আত্তাকে … Continue reading নকশি ক‍্যাঁতার আগুন(সংকোলিতো)

চে

অক্টোবর ১৯৬৭, বলিভিয়ার লা হিগুয়েরার উত্তরে এক স্কুল ঘর। হাত-পা বাঁধা অবস্থায়, বাঁ পায়ের মাসলে গুলিবিদ্ধ অবস্থায়, দেওয়ালে ঠেস দিয়ে কোনরকমে বসে আছেন একজন লোক, রক্ত-কাদায় মাখামাখি মুখ, ছেঁড়া জামাকাপড়, নিদ্রাহীন, অনাহারক্লিষ্ট শরীর, ক্রমাগত বিশ্বাসঘাতকতায় ক্লান্ত-অবসন্ন মন। সামনেই ধুলোভর্তি মেঝেয় পড়ে রয়েছে দুই দীর্ঘদিনের বন্ধু, সহযোদ্ধা, আন্তোনিও ও আর্তুরো-- নিথর, রক্তাক্ত। লোকটি, ডঃ আর্নেস্তো গুয়েভারা … Continue reading চে